হাসপাতালে নার্সের কারণে ১৪ মাসের শিশুর মৃত্যু

0
77
হাসপাতালে

বিশেষ প্রতিবেদক সিএনবি, মহেশখালীঃ-   মহেশখালী উপজেলার শাপলাপুর ইউনিয়নের এক শিশু মহেশখালী  হাসপাতালে নার্সের অবহেলার কারণে রাত আনুমানিক ১১ টার সময় মর্মান্তিক ভাবে মৃত্যু হয়। হাসপাতালে বাবা মা’র কান্নার ঝড় এবং বিচারের দাবী জানিয়েছেন।  

শিশুটির পিতা অভিযোগ করেন।তাহার ১৪ মাসের মেয়ে সানিয়া মনি হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তার মেয়ে সানিয়া মনির টান্ডা ও নিঃশ্বাস ভারী হয়। নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে তাই দ্রুত মহেশখালী হাসপাতালে নিয়ে আসেন তাকে এবং ভর্তি করানো হয়। 

শিশুকে ভর্তি করানোর পর হাসপাতালের কর্তব্যরত নার্স যখন ১৪ মাসের শিশুটিকে স্যালাইন। স্যালাইন দেয় শেষ হলে কর্তব্যরত নার্সটি শিশুর পিতা থেকে ২০ টাকা দাবী করে। তখন শিশু সানিয়ার দাদী উপস্থিত থাকায় নার্সকে বলেন এই হাসপাতালে অনেক বার রোগী ভর্তি করেছি কিন্তু কখনো কাউকে আমরা কখনো টাকা দি নাই এখন কেনো টাকা দিবো বললে এবং টাকা দিতে অনিচ্ছা প্রকাশ করে। পরে শিশুর পিতা টাকা দেওয়ার জন্য  পকেটে হাত দেন এবং হাতে টাকা নিয়ে ধরে থাকেন এক পর্যায়ে শিশুটির দাদির সাথে নার্সের কথা কাটা কাটি হয় তখন নার্সটি রাগের মাথায় স্যালাইন বাড়িয়ে দিয়ে চলে যায় এবং অতিরিক্ত স্যালাইন বাড়ানোর কারণে শিশু সানিয়া মনির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করেন শিশুটির পিতা ও স্বজনরা।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, শিশুটির অবস্থা আশংকাজনক ছিল। চিকিৎসকরা চেষ্টা করেও বাচাঁতে পারেনি। তাদের সেবার কমতি ছিলনা এবং ডাক্তার কখনো রোগী মৃত্যুর দিকে টেলে দেয় না এবং নিজের সব প্রচেষ্টার বিনিময়ে রোগীকে মৃত্যুর হাত থেকে বাচাঁতে চেষ্টা করে।যেহেতু রোগী ছোট্ট শিশু তাকে হাসপাতালে অনেক আগে আনা উচিৎ ছিল।শিশুটির অবস্থা মারাত্মক হওয়ায়  শিশুটি বাচাঁনো যায় নি বলে জানিয়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।   

বাংলাদেশে শিশুদের জন্মের পরে যে টিকাদান কর্মসূচি আছে তা শিশু মৃত্যু কমাতে বড় একটি সাফল্য নিয়ে এসেছে৷ তাই নবজাতক বাদ দিলে পাঁচ বছর পর্যন্ত শিশুমৃত্যু কমাতে বাংলাদেশ সফল হচ্ছে৷ নবজাতকের মৃত্যুর হার ধীরে হলেও কমছে

বিশ্বে পাঁচ বছরের কমবয়সি শিশুদের মৃত্যুর হার ক্রমেই কমে আসছে৷ তবে বাড়ছে নবজাতকের মৃত্যুর হার৷ বিশ্বে প্রতিদিন প্রায় ৭ হাজার নবজাতক মারা যাচ্ছে৷ নবজাতক মৃত্যুর প্রবণতা ৪১ শতাংশ থেকে বেড়ে ৪৬ শতাংশে উন্নীত হয়েছে৷ বর্তমান প্রবণতা অব্যাহত থাকলে ২০৩০ সালের মধ্যে ৩ কোটি শিশু ২৮ দিন বয়সের মধ্যে মারা যাবে বলে ইউনিসেফ-এর সর্বশেষ প্রতিবেদনে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here