ব্রীজের অভাবে কাঠের ব্রীজ দিয়ে চলাচল করছে

0
79

আহসান উল্লাহ,সিএনবি মহেশখালী:

ব্রীজের পাশে একটি প্রাইমারী স্কুল রয়েছে স্কুলে প্রায় ১ হাজার  ছাত্র-ছাত্রী যাতায়তের জন্য এই কাঠের ব্রীজই একমাত্র সম্বল।ঝড় বৃষ্টিতে এই কাঠের ব্রীজ দিয়ে চলাফেরা করা খুবই অসম্ভব হয়ে যায়।বর্ষায় প্রায় সময় ব্রীজটি পানিতে ডুবে থাকে চলাচলে বড় ধরনের সমস্যা সৃষ্টি হয়ে যায়। ব্রীজর অভাবের কারণে কোন গাড়ি বা রিক্সা সহজে চলাচল করতে পারছে না ফলে স্থানীয় জনগণকে তাদের বাড়িতে যেতে প্রচুর পথ হেঁটে পাড়ি দিতে হয় বলে জানিয়েছেন স্থানীয় জনগণ।

বর্তমান মহেশখালী পৌরসভার ও ছোট মহেশখালীর মধ্যেকার  ব্রীজ ভেঙে গেছে প্রায় দুই বছর আগে।এই কাঠের ব্রীজ দিয়ে ছোট মহেশখালী ও পৌরসভার দুই ইউনিয়ন এর মানুষ চলা ফেরা করে।দীর্ঘ দিন যাবত এই ব্রীজ ভেঙ্গে যাওয়ার ফলে দুই ইউনিয়নে বসবাসকৃত প্রায় ১০ থেকে ২০ হাজার মানুষ অত্যান্ত ঝুকিপূর্ণ ভাবে কাঠের এই ব্রীজ দিয়ে চলাফেরা করছে।

এই ব্রীজের ব্যাপারে স্থানীয় একজন ভোক্তভোগী মানুষ ব্রীজ পার হতে দেখে তাকে জিজ্ঞেস করলে সে কক্স নিউজ বিডি (সিএনবি) জানায়- দীর্ঘ দিন যাবত এই ব্রীজের সমস্যা আমরা ভোগতেছি কোন বিবাহ হলে বরের গাডি অনেক দূরে রেখে বর কনে দুজনকে হেঁটে আসতে হয়।এ ছাড়া এমাজেন্সী কোন রোগী নিতে হলে গাড়ির অভাবে রোগীকে কোলে করে কাঠের ব্রীজ পার করে তারপর গাড়িতে করে হাসপাতালে নিতে হয়। 

এদিকে স্থানীয়রা বলেন ব্রীজ ভেঙ্গে যাওয়ার পর চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তাদের প্রচেষ্টায় নিজেদের  অর্থায়নে এই কাঠের ব্রীজ তৈরী করেন।স্থানীয়দের একটা দাবী যেহেতু দুই ইউনিয়নের মধ্যে এই ব্রীজটি একমাত্র সম্বল ছোট  মহেশখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহেশখালী পৌরসভার মেয়র দুই জনের সার্বিক সহযোগিতা এবং মাননীয় এমপি আলহাজ্ব আশেক উল্লাহ্ রফিক মহোদয়ের নিকটে জোরালো আবেদন জানিয়েছেন অত্র এলাকায় বসবাসী কারী নিরীহ জনসাধারণ। অতি শীঘ্রই যথাসম্ভব এই ব্রীজ নির্মাণ করে এলাকা বাসীকে একটি মারাত্মক দূর্ঘটনা থেকে বাঁচান এবং চলাফেরার সুযোগ করে দিয়ে মানবতার সেবায় এগিয়ে আসুন।ছোট মহেশখালী ও মহেশখালী পৌরসভার জনগণ আপনাদের কাছে চির কৃতজ্ঞ থাকবে।   

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here