কক্সবাজার সদর থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার- ২৮

0
484

সি এন বি ডেস্ক: কক্সবাজার সদর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন মামলায় অভিযুক্ত ২৮ জনকে আটক করেছে। গত ২২/০৯/২০১৯ ইং তারিখ হতে সকাল হতে ২৩/০৯/২০১৯ ইং তারিখ সকাল পর্যন্ত অফিসার ইনচার্জ জনাব মোঃ ফরিদ উদ্দিন খন্দকার (পিপিএম) পুলিশ পরিদর্শ (তদন্ত) জনাব মোঃ খায়রুজ্জামান, পুলিশ পরিদর্শক (ইন্টিলিজেন্স) মোহাম্মদ আরিফ ইকবাল,

এসআই আবু বকর সিদ্দিক,মোঃ সাইফুল ইসলাম,এসআই রাশেদুল কবির,এসআই শেখ মোঃ সাইফুল আলম,এসআই প্রদীপ চন্দ্র দে,এসআই আবুল কালাম,এসআই বেলাল উদ্দিন, এএসআই লিটন মিয়া, সঙ্গীয় ফোর্স এবং ঈদগাঁও তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান খান সহ কক্সবাজার সদর মডেল থানা এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে ২৮ জন আসামীকে গ্রেফতার করেন কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশ।
নিয়মিত মামলা সংক্রান্তে গ্রেফতারকৃত আসামীরা হলেন

কক্সবাজার সদর

১। এহাসান জোহান,পিতা-মোঃ এহাসান উল্লাহ,সাং-দক্ষিন মাইজ পাড়া, ০৩ নং ওয়ার্ড,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।
২।আবুল কাশেম,পিতা-আব্দুর রহিম,সাং-বড় মহেশখালী,থানা-মহেশখালী, জেলা-কক্সবাজার।
৩। তৌহিদুল ইসলাম,পিতা-সুরুত আলম,সাং-সওদাগড় পাড়া,ভারুয়াখালী, থানা ও জেলা-কক্সবাজার।
৪। মোঃ জিল্লুর রহমান,পিতা-মৃত সৈয়দুল হক,সাং-পূর্ব পেশকার পাড়া,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।
৫।। মোঃ রফিক, পিতা-সালেহ আহাম্মদ, মাতা- মৃত খদিজা, সাং- দক্ষিণ পাড়া, কুতুবজোম, থানা- মহেশখালী, জেলা- কক্সবাজার, বর্তমানে- ম্যানেজার, সিলভার বীচ রিসোর্ট (আবাসিক) সৈকত পাড়া, কলাতলী, থানা- কক্সবাজার সদর, জেলা- কক্সবাজার,

কক্সবাজার সদর

৬। আনোয়ার হোসেন,পিতা- মৃত ফখরুল ইসলাম, মাতা- জামেনা বেগম, সাং- চরকলমি, ০৩নং ওয়ার্ড, থানা- চরফ্যাশন, জেলা- ভোলা, বর্তমানে- কর্মচারী, সিলভার বীচ রিসোর্ট (আবাসিক) সৈকত পাড়া, কলাতলী, থানা- কক্সবাজার সদর, জেলা- কক্সবাজার।
৭। মোহাম্মদ রুবেল, পিতা- মোহাম্মদ আলী, মাতা- দিলদার বেগম, সাং- সিকদার পাড়া, রাজারকুল ইউপি, থানা- রামু, জেলা- কক্সবাজার।
৮। মোহাম্মদ জিয়া ,পিতা- মনসুর আলী, মাতা- সখিনা বেগম, সাং- চরপাড়া, জোয়ারিয়ানালা, থানা- রামু, জেলা- কক্সবাজার।
৯। আবদুল হালিম, পিতা- আবদুর রহমান, মাতা- ছেনুয়ারা বেগম, সাং- পাতাবাড়ী, থানা- উখিয়া, জেলা- কক্সবাজার, বর্তমানে- মধ্যম কুতুবদিয়া পাড়া, কমিশনারের বাড়ীর পাশের্^
১০। মেজবাহ উদ্দিন,পিতা- রশিদ আহাম্মদ, মাতা- তাহেরা বেগম, সাং- পূর্ব আদর্শগ্রাম, কলাতলী, কক্সবাজার পৌরসভা, থানা- কক্সবাজার সদর, জেলা- কক্সবাজার,
১১। জোৎ¯œা বেগম পিতা- শামসুল আলম, মাতা- সেতারা, সাং- পশ্চিম মুহুরী পাড়া, পাহাড়ের সাইট, ঝিলংজা ইউপি, থানা- কক্সবাজার সদর, জেলা- কক্সবাজার,
১২। শামীমা আকতার, পিতা-শামসুল আলম, মাতা- নুর নাহার, সাং- ভুতপাড়া, খরুলিয়া, ঝিলংজা ইউপি, থানা- কক্সবাজার সদর, জেলা- কক্সবাজার,
৩। জান্নাতুল বকেয়া, পিতা- মৃত মোঃ নাসিম, স্বামী- মৃত আল-আমিন, সাং- বড় বিল, নাসিম উদ্দিনের বাড়ী, বাইশারী, থানা- বান্দরবান সদর, জেলা- বান্দরবান।

১৪। মোঃ নুর ইসলাম,পিতা-মৃত আলম,সাং-পূর্ব হামজার ডেইল,কদমতলী,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।
১৫। রেহানা আক্তার, স্বামী-মুজিবুর রহমান,সাং-ফদনার ডেইল,কুতুবদিয়া পাড়া,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।
১৬। মোঃ ইয়াছিন, পিতা-মৃত সিরাজ মিয়া,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।
১৭। মোঃ রাসেল ফেরদাউস,পিতা-মোঃ গোলাম মোস্তাফা,সাং-নাকাইল,বাজার থানা-শৈলকুপা,জেলা-ঝিনাইদহ।
১৮। খায়রুল বাসার,পিতা-মৃত কালা মিয়া,সাং-পালংখালী,থানা-উখিয়া,জেলা-কক্সবাজার।
১৯। তপন কান্তি,পিতা-হৃদয় কান্তি ,সাং-জাদিয়া পাড়া,কৃষ্ণরাম সড়ক,কক্সবাজার পৌরসভা,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।
২০। আব্দুল্লাহ, প্রকাশ সাগর,পিতা-আজিজুর রহমান,কাশিয়াখালী,ইসলামাবাদ,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।
২১। মোঃ জোবায়ের,পিতা-মোহাম্মদ ইয়াসিন,সাং-মধ্যম কলাতলী,পৌরসভা,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।
২২। মোহাম্মদ ইয়াসিন,পিতা-মৃত বাবুল,সাং-মধ্যম কলাতলী,পৌরসভা,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।
২৩। আনোয়ার,পিতা-মৃত কবির হোসেন,নাইট্যাংপাড়া,০১ নং ওয়ার্ড,টেকনাফ পৌরসভা,থানা-টেকনাফ, জেলা-কক্সবাজার।
২৪। আম্বিয়া খাতুন, স্বামী-সৈয়দ আলম,সাং-নয়া পাড়া,সাবরাং,থানা-টেকনাফ,জেলা-কক্সবাজার।
২৫। মিনারা বেগম,পিতা-মৃত ফয়েজ আহম্মদ,সাং-এমএসসি নং-২০৯৬৩ ক্যাম্প,থানা-টেকনাফ,জেলা-কক্সবাজার।
২৬। নুর ফাতেমা,পিতা-মৃত জামাল,সাং-মরিচ্যা পালং,থানা-উখিয়া,জেলা-কক্সবাজার।
২৭। ফাতেমা আক্তার,পিতা-আসান উল্লাহ,সাং-পালংখালী,থানা-উখিয়া,জেলা-কক্সবাজার।
২৮। সৈয়দ উল্লাহ,পিতা-মোঃ হোসেন,সাং-নুনিয়ারছড়া,০২ নং ওয়ার্ড,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ জনাব মোঃ ফরিদ উদ্দিন খন্দকার (পিপিএম) তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন বিভিন্ন মামলায় গ্রেফতারের পর আদালতের মাধ্যমে তাহাদেরকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এলাকার আম জনতা ও পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তার নিশ্চিতের লক্ষ্যে মামলায় অভিযুক্ত ও চিহিৃত অপরাধীদের বিরুদ্ধে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here